Breaking News
Home / Education / কোচিং ছাড়াই ৩৮তম বিসিএসে ক্যাডার হলেন আসমা আক্তার!

কোচিং ছাড়াই ৩৮তম বিসিএসে ক্যাডার হলেন আসমা আক্তার!

@আসমা আক্তার
৩৮তম বিসিএসে সাধারণ শিক্ষা (বাংলা) ক্যাডারে সুপারিশপ্রাপ্ত। কোচিং ছাড়াই যেভাবে প্রস্তুতি নিয়ে, যে বইগুলো পড়ে আসমা আক্তার ৩৮তম বিসিএসে শিক্ষা ক্যাডার হয়েছেন সেগুলোই লিখেছেন আজকের পোস্টে।

আসমা আক্তার বলেন, “নিয়মিত পড়ালেখার অন্য কোন বিকল্প নেই। আপনাকে সময় খুঁজে বের করে সেই সময়কে কাজে লাগাতে হবে। আরও একটু চেষ্টা করলে পারতাম, এমনটা আপনার যেন কখনো মনে না হয় যে।”
তিনি আরো বলেন, “আমি ঘুমিয়ে শান্তি পেতাম না। ঘুমের ঘাটতি ছিল ৩৮ তম বিসিএসের ভাইভার দিনটি পর্যন্ত। হেটে হেটে, শুয়ে, বসে, দাঁড়িয়ে; কত ভাবেই না পড়েছি।

বসে পড়তে পড়তে যখন পা ফুলে যেতো, তখন ঘুরে ঘুরে পড়তাম। পড়তে পড়তে ধৈর্যহারা হয়ে পড়লে আল্লাহর কাছে সাহায্য চাইতাম আবারও পড়ার ধৈর্য দেওয়ার জন্য।”

সবসময় আল্লাহর কাছে দোয়া করতাম, আল্লাহ আমার পরিশ্রম কে সার্থক করে দিও। এই সময়ে অনেক কষ্ট, সমালোচনা, অবহেলা, অবমাননা; আরো কত কিছু সহ্য করতে হয়েছে। মাঝে মাঝে বই ভিজে গেছে তবুও পড়া বাদ দিই নি।

আমি কখনো বিসিএসের জন্য কোচিং করিনি। আলহামদুলিল্লাহ, পরিবারের সবগুলো মানুষ আমাকে খুব অনুপ্রেরণা ও সাহস যুগিয়ে পাশে থেকেছে। আমি শুধু আমার অভিজ্ঞতাটুকু আপনাদের সাথে শেয়ার করছি, এর থেকে যদি আপনারা উপকৃত হতে পারেন। আপনারা নিজেরা নিজেদের কৌশল অবলম্বন করে পড়াশোনা চালিয়ে যান।

আমি বোর্ড বই ও বেসিক রেফারেন্স বইগুলো বেশি অনুসরণ করেছি। পরীক্ষার সাত দিন আগে থেকে বিসিএস বিশেষ সংখ্যায় চোখ বুলিয়েছি। ডাইজেস্ট আমি পড়িনি বললেই চলে।

★সাধারণ জ্ঞানের জন্য নিয়মিত পত্রিকা পড়তাম অনার্স লাইফ থেকেই। আলহামদুলিল্লাহ, যা থেকে খুব উপকৃতও হয়েছি প্রিলি ও লিখিত পরীক্ষায়। এছাড়াও আমি MP3 বইটা পড়েছি সাধারণ জ্ঞানের জন্য। আন্তর্জাতিকের চেয়ে বাংলাদেশ বিষয়াবলি কে বেশি গুরুত্ব দিয়েছি এবং বেশি সময় দিয়ে পড়েছি।

★বাংলার ক্ষেত্রে আমি যেটা অনুসরণ করতে বলবো, সৌমিত্র শেখরের বাংলা ভাষা ও সাহিত্য জিজ্ঞাসা বইটি। এর পাশাপাশি MP3 বাংলা ও নবম-দশম শ্রেণির বাংলা ব্যাকরণের বোর্ড বইটি দেখতে পারে।।

★ ইংরেজি সাহিত্যের জন্য মিরাকল বইটি পড়েছি। ইংরেজি গ্রামারের জন্য অনেকগুলো বই দেখেছি; আপনারা ভালো কোন Grammar বই সিলেবাসের টপিক ধরে দেখতে পারেন। এছাড়াও ওরাকল English, English for Competitive Exam বই দুটোও দেখতে পারেন।

★ গণিতের জন্য ৫ম থেকে ১০ম শ্রেণি পর্যন্ত সিলেবাসের টপিক ধরে ধরে বোর্ড বইয়ের অঙ্কগুলো করেছি। এছাড়া মানসিক দক্ষতার জন্য আলাদা কোন প্রস্তুতি ছিল না।
★বিজ্ঞানের জন্য বোর্ড বই এর পাশাপাশি ওরাকল গাইড পড়েছি। ভূগোল ও পরিবেশের প্রস্তুতির জন্য নবম-দশম শ্রেণির বাংলাদেশ ও বিশ্ব পরিচয় বইয়ের পাশাপাশি ওরাকল গাইড পড়েছি।

★কম্পিউটার ও তথ্য প্রযুক্তির জন্য “ইজি প্রকাশনীর” বইটা দেখেছি। এছাড়া নৈতিকতা মূল্যবোধ, সুশাসন টপিকটা আমি একেবারে পড়িই নি। তবে পরীক্ষার হলে Sixth Sense কাজে লাগিয়ে উত্তর করে এসেছি।

আপনার জন্য আমার পরামর্শ হলো, “ঠান্ডা মাথায় এবং চাপমুক্ত হয়ে প্রস্তুতি নিন ও পরীক্ষা দিন। লেগে থাকুন আপনার স্বপ্নের পেছনে, জয় ইনশাআল্লাহ আসবেই। আর একটা কথা, হতাশাকে পাশ কাটিয়ে চলুন। সুস্থ থাকুন, নিরাপদে থাকুন। আল্লাহ আপনাদের সহায় হোক।

About admin

Check Also

গুগলে চাকরি পেলেন চট্টগ্রামের মেয়ে শাম্মী

বাংলাদেশের নারীদের জন্য অনুপ্রেরণার এক নাম তিনি। বর্তমানে টেক জায়ান্ট গুগলের প্রোডাক্ট ম্যানেজার হিসেবে কাজ ...

Leave a Reply

Your email address will not be published.